ব্রেকিং নিউজ
মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি আবদুস ছালেক সিলেটে বদলী : আসছেন নতুন ওসি শাহ আকিল উদ্দিন

মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি আবদুস ছালেক সিলেটে বদলী : আসছেন নতুন ওসি শাহ আকিল উদ্দিন

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: মৌলভীবাজার সদর মডেল থানার পরিদর্শক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো: আবদুস ছালেক এবং ওসি তদন্তকে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে। রোববার রাতে মৌলভীবাজার মডেল থানা ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় কালে এ তথ্য জানানো হয়। ওসি আবদুস ছালেকের সভাপতিত্বে সাব-ইন্সপেক্টার পরিমল দেবের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মডেল থানার সহকারি পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষানবিশ সহকারি পুলিশ সুপার আবু ইয়াহিয়া, বক্তব্য রাখেন সদ্য যোগদানকারি মডেল থানার ওসি (তদন্ত) একেএম নজরুল ইসলাম, মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের ১ নং সহসভাপতি,মৌলভীবাজার টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্ঠান পরিষদ মৌলভীবাজার শাখার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাধাপদ দেব সজল, মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের ২নং সহসভাপতি আবদুল হামিদ মাহবুব, সৈয়দ হুমায়েদ আলী শাহীন, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এস এম উমেদ আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সালেহ এলাহী কুটি, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক পান্না দত্ত, মৌলভীবাজার পাবলিক লাইব্রেরীর সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মুহিব, আনহার আহমেদ সমশাদ, প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ বিটিভির হাসানাত কামাল প্রমূখ। উল্লেখ্য, সম্প্রতি,মৌলভীবাজার শহর ও আশপাশ এলাকায় ডাকাতি আশংকাজনক অবস্থায় বেড়ে যায়। বিগত ২০১৪ সালের ২০ মার্চ আবদুস ছালেক ওসি হিসেবে মৌলভীবাজার মডেল থানায় যোগদান করেন।

মৌলভীবাজারে বেড়েছে অস্বাভাবিক হারে ডাকাতি, জনমনে আতঙ্ক

হোসাইন আহমদ, মৌলভীবাজারঃ

আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন এখন মৌলভীবাজারবাসী। হত্যা, গুম, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, অপহরন সহ নানা অপরাধের ঘটনা বাড়ছেই। এরই সাথে পাল্লা দিয়ে মৌলভীবাজারে বাড়ছে দূর্ধর্ষ ডাকাতি। একের পর এক শনির গ্রাস থেকে কোনো ভাবেই পরিত্রান পাচ্ছেন না এ অঞ্চলের লোক। অনেকেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন।moulvibazar Rovary-2

সচেতন মহল মনে করেন, অপরাধ যে গতিতে বাড়ছে, পুলিশের প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণের গতি সে হারে বাড়ছেনা। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে অপরাধকর্ম চলছে বেশ জোরে শোরে। গড়ে উঠছে প্রশিক্ষিত একাধিক অপরাধী গ্রুপ।

অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ১ এপ্রিল শুক্রবার ভোরে শহরতলির পূর্ব হিলালপুর গ্রামের ঠিকাদার সৈয়দ মো. মুহিবুর রহমানের বাড়িতে ৬ জন ডাকাত মুখোশপরে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তার বাড়ির পূর্ব ঘরের সম্মুখের গ্রিলের দরজা ভেঁঙে ঘরে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাতরা স্টিলের আলমীরা খুলে ২৪ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদ ১লক্ষ টাকা, ৩টি মোবাইল সেট ও মূল্যবান শাড়ি/শার্ট সহ ১১ লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

গত ২৪ মার্চ দিবাগত রাত শহরের শ্রীমঙ্গল রোডস্থ বদরুন্নেছা হাসপাতালের পাশে আলমগীর হোসেনের বাসা থেকে সংঙ্গবদ্ধ ডাকাতরা ১০ ভরি স্বর্ণ, নগদ ২৫ হাজার টাকা, ৩টি মোবাইল সেট নিয়ে যায়।

গত ১৫ মার্চ মৌলভীবাজার চৌমুহনায় টিসি মার্কেটের প্রিন্স হেয়ার ড্রেসার ও নূরানী হোটেলে ঢ়ুকে নগদ টাকা, স্বর্ণের চেইন, মোবাইল সেট সহ প্রায় দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

গত ১৪ মার্চ মৌলভীবাজার শহরেরর বনশ্রী এলাকায় সাবেক পৌর কমিশনার, জেলা-বিএনপির সহ-সভাপতি ও ব্যবসায়ী ইউসুফ আলীর বাসায় দূর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়। ডাকাত দল ঘরে প্রবেশ করে বাসার লোকজনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি রেখে ৪৫ ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ চার লক্ষ টাকা, একটি মটর সাইকেল, ৬টি দামি মোবাইল সেট, মূল্যাবান মালামাল সহ ২০ লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
গত ১১ মার্চ রাতে ১০/১৫ জন ডাকাত সদর উপজেলার নাজিরাবাদ ইউনিয়নের গোবিন্দ্রপুর বাজারের প্রবাসী আজাদ মিয়ার বাড়িতে গ্রীল ভেঙে ঘরের ভিতর প্রবেশ করে আলমারি থেকে নগদ ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা, দেড় ভরি সোনার গহনা, চারটি মোবাইল ফোনসহ প্রায় ৫ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।
গত ৮ মার্চ মৌলভীবাজার শহরেরর কলিমাবাদ এলাকায় জেলা জজ আদালতের সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট আজিজুর রব চৌধুরীর বাসায় দূর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়। একদল সংঙ্গবদ্ধ ডাকাত বাসার লোকজনদের অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে ২৫ ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ এক লক্ষ টাকা ও ৫টি দামি মোবাইল ফোন লুট করে নিয়ে যায়।
গত ৪ মার্চ রাজনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নে ক্ষেমন্ত গ্রামে আছকির মিয়ার বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় ডাকাতরা নগদ এক লাখ ৪৪ হাজার টাকা, ১৪ ভরি সোনার গহনা, দু’টি মোবাইল ফোনসহ মোট ১০ লাখ টাকার মালপত্র নিয়ে যায়।

গত ১৩ ফেব্রুয়ারী গভীর রাতে রাজনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের গয়ঘর গ্রামের ব্যবসায়ী মুজিবুর রহমানের বাড়িতে থেকে স্বর্ণ, মোবাইল ও নগদ টাকা ও মালামাল লুট করে ডাকাতরা।
গত ১৪ মার্চ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে অস্ত্রসহ তিন ডাকাতকে আটক করেছে পুলিশ।

১৩ মার্চ কুলাউড়ায় উপজেলার জয়চন্ডী ও ভুকশিমইল ইউনিয়নে গভীর রাতে পৃথক ৩ বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। ডাকাতরা ওই ৩ বাড়ির সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ৬ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়েছে। এসময় ডাকাতদের হামলায় ৩ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।
ঘটে যাওয়া ডাকাতির সংবাদের ফেইসবুক কমেন্টে বেশিরভাগ লোকেই এসব ঘটনার জন্য পুলিশকে দায়ী করেছেন।

সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ ড. ফজলুল আলীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অপরাধীদের চিহ্নত করে প্রশাসনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি প্রয়োজন।

মৌলভীবাজার ব্যাংক অফিসার এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ আবু তাহের মৌলভীবাজারে গনগন ডাকাতি হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাতে পুলিশের টহল জোরধার করা প্রয়োজন এবং উঠতি বয়সের যুবকদেরকে গভীর রাতে অবাধে চলাফেরা করতে না দেওয়া। তিনি জনপ্রতিনিধিদেরকের আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

অস্বাভাবিক হারে ডাকাতি বাড়ার কারণ জানতে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহ্ জালালের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, সব সময় পরিস্থিতি সমান থাকে না। মাঝে মধ্যে একটু খারাপ যায় তারপর আবার নিয়ন্ত্রনে আসে। আমরা চেষ্টা করছি ডাকাতদেরকে চিহ্নিত করে গ্রেফতার করার জন্য। ইতি মধ্যে মৌলভীবাজার শহর ও কমলগঞ্জ থেকে আন্তঃ বিভাগীয় একাধিক ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আগের চেয়ে এখন অনেক বেশি পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। আগামীতে যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে এ জন্য আমরা প্রয়োজনী ব্যবস্থা নিচ্ছি।

Share This:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*