ব্রেকিং নিউজ
দুই মাসের ব্যবধানে পোষা হাতির আক্রমণে মৌলভীবাজারে তিন জন নিহত

দুই মাসের ব্যবধানে পোষা হাতির আক্রমণে মৌলভীবাজারে তিন জন নিহত

এম এ মোহিত, বাংলাকাগজটুয়েন্টিফোর ডেস্ক:

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় পোষা হাতির আক্রমণে ইউছুফ আলী (৭০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এনিয়ে গত ২ মাসে পোষা হাতির আক্রমণে তিন জন নিহত হয়েছেন। এর আগে গত ৩ ও ২৩ সেপ্টেম্বর মাহুতসহ ২জন পোষা হাতির আক্রমণে নিহত হয়।
রোববার ৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও বাংলাবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ইউছুফ আলীর বাড়ি টিলাগাঁও ইউনিয়নের বিজলি গ্রামে। হাতিটির নাম ‘লক্ষ্মী’ সাথে তার একটি ছোট বাচ্চা রয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। হাতিটির মালিক উপজেলা সদরের বাসিন্দা মোস্তফা উদ্দিন বলে জানিয়েছেন হাতিটির মাহুত। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাহুত হাতিটিকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর এলাকা থেকে সড়ক পথে কুলাউড়ায় নিয়ে আসছিলেন। সন্ধ্যার দিকে বাংলাবাজার এলাকায় পৌঁছালে সামনে হঠাৎ একটি গরুর বাছু আচমকা দৌড় ঝাঁপ করলে মা হাতিটি হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে ওঠে। একপর্যায়ে সে মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে বেরিয়ে আসা ইউছুফ আলীর ওপর আক্রমণ চালায়। হাতিটি শুঁড় দিয়ে তাঁকে পেছিয়ে আছাড় দেয় এবং একটি বন্ধ দোকানের সাটারের সাথে লাগিয়ে ধাক্কা মেরে নিচে ফেলে দেয়। এরপর পা দিয়ে মাথায় একাধীক আঘাত করে। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। এ সময় বাজারের ব্যবসায়ী ও পথচারীরা আতংকে এদিক ওদিক দৌঁড় ঝাঁপ করতে থাকেন। পরে হাতিটি পার্শ্ববর্তী কর্মধা এলাকার দিকে রওনা দেয়। খবর পেয়ে সন্ধ্যা সাতটার দিকে পুলিশ ও বন বিভাগের লোকজন ঘটনাস্থলে যান এবং মাহুতের সহায়তায় হাতিটিকে নিয়ন্ত্রণে আনেন। কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মুসা রাত ৯টার দিকে মুঠোফোনে জানান কর্মধা এলাকায় মাহুতের মাধ্যমে হাতিটিকে নিয়ন্ত্রণে এনে পায়ে লোহার শিকল পরিয়ে একটি বড় গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য ইউছুফের লাশ মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যার হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। বন বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে এ ব্যাপারে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হাটির মাহুত বদই মিয়া ও সহকারী মাহুত ইয়াছিন মিয়া জানান, মা হাতিটি বিক্রির জন্য কমলগঞ্জ এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল কিন্ত উপযুক্ত দাম না পাওয়ায় ফেরার পথে এই দূর্ঘটনা ঘটে। তারা জানান বাচ্চা হারানোর ভয়ে হয়ত হাতিটি হঠাৎ উন্মত্ত হতে পারে। এবিষয়ে জানতে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও হাতির মালিকের মুঠোফোন সংযোগ পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য ৩ সেপ্টেম্বর রাতে জুড়ী উপজেলার পুটিছড়ার বাসিন্দা মঙ্গল খাড়িয়া নামক এক চা শ্রমিককে হত্যা করে রসগোল্লা নামের এক পাগলা হাতি। এর ২০ দিনের মাথায় ২৩ সেপ্টেম্বর কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নের গনি মিয়া (৪৫) নামের এক মাহুতকে হত্যা করে। এনিয়ে উপজেলায় জুড়ে হাতি আতঙ্ক দেখা দিলে ঢাকা থেকে স্পেশাল টিম এসে তিন দিন অভিযান চালয়ে নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে রসগোল্লা সঙ্গীর খোঁজে উন্মত্ত হয়ে আক্রমণ চালালেও এবার ‘লক্ষ্মী’ বাচ্চা হারানোর ভয়ে উন্মত্ত হয়ে এই আক্রমণ চালায়। সম্প্রতি একের পর এক হাতির আক্রমণে মানুষ মারা যাওয়ার ঘটনায় এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে।

Share This:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*